As-Sunnah Trust

প্রশ্নোত্তর

ক্যাটাগরি

প্রশ্নোত্তর 7077

প্রশ্ন

আস-সালামু আলাইকুম। পেশায় আমি একজন চিকিৎসক। এক সন্তানের জনক। আমার পিতা-মাতা জীবিত। আমরা দুই ভাই, এক বোন। আজ ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩ এ ইসলাম এবং বিবাহ নিয়ে পারিবারিক আলাপে হঠাৎ জানতে পারলাম আমার বাবা আমার মাকে ১৯৮৭ সালে মানে আমার জন্মের পূর্বে রাগের মাথায় মৌখিকভাবে তালাক দেন এবং ৩ বার তালাক দেন। তখন বিটিভি এবং পত্র-পত্রিকায় ব্যপকভাবে প্রচার হতো যে রাগের মাথায় তালাক দিলে তালাক হয়না। সেই সুবাদে আমার পিতা-মাতাও এই বিষয়টি নিয়ে আর আগান নাই এবং সংসার করে যাচ্ছেন। এই বিষয়টি আমরা কেউ জানতাম না। এখন আমার প্রশ্ন হচ্ছে, ১. শরিয়া অনুসারে কি আমার পিতা-মাতা বৈধ সম্পর্কে আছেন? ২. যদি বৈধ সম্পর্কে না থাকেন, তবে এখন কি এর কোন সমাধান আছে? ৩. যেহেতু আমার জন্মের পূর্বে এই ঘটনা ঘটেছে, তাহলে কি আমি নাজায়েজ সন্তান হিসেবে পরিগনিত হবো? দয়া করে আমাকে এর সমাধান দিয়ে উপকৃত করবেন। মানসিকভাবে আমি খুবই অশান্তি বোধ করছি। ধন্যবাদ।

উত্তর

ওয়া আলাইকুমুস সালাম। তালাক মানুষ রাগে হলেই দেয়। শান্ত পরিস্থিতিতে তালাক হয় না সাধারণত। ইসলামী আইনে তালাক দেয়ার জন্য কাগজপত্র বা লেখা আবশ্যক নয়। মৌখিক ভাবে তালাক দিলেই তালাক হয়ে যায়। তিন তালাক দিলে স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক আর বাকী থাকে না, বিচ্ছিন্না হওয়া আবশ্যক। সুতরাং এখনই আপনার পিতা-মাতার আলাদা হওয়া জরুরী। তিন তালাক দিলে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার কোন সুযোগ থাকে না। বিচ্ছেদই একমাত্র পথ। না জানার কারণে তারা এতোদিন একসাথে ছিল, যেহেতু এখন জানা হয়ে গেল সুতরাং আর তারা একসাথে থাকবেন না। তবে এর জন্য আপনারা দায়ী নন। অশান্তি বোধ করার দরকার নেই। এখন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।

তিন তালাকের পর যদি তালাকপ্রাপ্ত মহিলার অন্য কোথাও বিয়ে হয় এরপর ২য় স্বামী যদি মারা যায় বা সেখান থেকে যদি তালাকপ্রাপ্ত হয় তাহলেই কেবল প্রথম স্বামীর সাথে আবার বিবাহ হতে পারে।