As-Sunnah Trust

প্রশ্নোত্তর

ক্যাটাগরি

প্রশ্নোত্তর 5884

প্রশ্ন

মেয়ের মা মেয়েকে আমার কাছ থেকে ছাড়া ছাড়ি করিয়ে নিতে আগে থেকেই পরিকল্পনা করে রাখে কিন্তু আমরা জানতাম না। এই না দিতে চাওয়ার উপর ভিত্তি করে ঝগড়াঝাটি হলো। মেয়ের মা মেয়েকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে তালাক দিতে বাধ্য করলো। শেষমেশ কাজী ডেকে এক বসায় তালাক নামা পড়ানো হলো – মৌখিকভাবে (একবাক্যে এবং একবার-ই ১ তালাক ২ তালাক, ৩ তালাক গ্রহণ বলা হলো)। কিন্তু মেয়ে টা মন থেকে তালাক দিতে চায় নি। আবার ঐ সময় আমরা আরেকটু ভাবতে বললে মেয়েওয়ালারা সময় দিতে চায় নি, ওরা আর কিছু ভাবতে চায় না, তালাক চায়। আমরা তালাক দিতে চাই না কিন্তু ওরা তালাক দেবেই। এবং আমাকে পরোক্ষভাবে চাপাচাপি করে যেন তালাক দিয়ে দেই। (আমি মেয়েকে ঘন্টায় ঘন্টায় কেন কল দেই না, আমি কেন ভিডিও কল দেই না, আমি কেন প্রতি মাসে ২ বার করে গ্রামে যাই না, আমি কেন মেয়ের সব আত্মীয়ের সাথে কথা বলি না, এগুলো কারণ হিসেবে দেখিয়ে ছাড়াছাড়ি করাতে চাইলো) কিন্তু ঐ সময় আমারও মন থেকে তালাক দিতে ইচ্ছে ছিল না। কিন্তু দূর্ঘটনা হয়ে গেল। চাপের কারণে বিচ্ছেদ হয়ে গেলে। কিন্তু এখন আমি ঐ মেয়ের সাথে পূণরায় জীবন-যাপন করতে চাই, মেয়েও সেটাই চায়। এমতাবস্থায় উপরোক্ত পরিস্থিতি বিবেচনা করে শরীয়তের ভিত্তিতে স্ত্রীকে ফিরিয়ে নেওয়া যাবে কিনা জানাবেন দয়া করে। [বি.দ্রঃ এখানে মনের কথাগুলো (তালাকের মুহুর্তে মনের অবস্থা যা ছিল) সেইভাবে তুলে ধরতে পারিনি, তাই অনুরোধ রইল কিছু কথা সরাসরি বলার সুযোগ করে দিতে।]

উত্তর

তালাক কে দিয়েছে? আপনি দিয়েছেন না আপনার স্ত্রী? স্ত্রী তালাক দিলে কী বাক্যে দিয়েছে? আপনি স্ত্রীকে তালাক গ্রহণের অনুমতি দিয়েছিলেন কিনা? অনুমতি দিলে দিলে কী কী শর্তে দিয়েছিলেন? সেই সব শর্ত তালাকের সময় পাওয়া গিয়েছিলো কিনা? এই সব প্রশ্নের উত্তর লিখে আবার প্রশ্নে করবেন। তাহলেই কেবল উত্তর দেওয়া যাবে। অথবা ফোন করবেন যে কোন দিন এশার পর 01762629405