As-Sunnah Trust

প্রশ্নোত্তর

প্রশ্নোত্তর 42
বিড়ালের উচ্ছিষ্ট কি পাক? যদি কোন তরকারির ডিস থেকে বিড়াল ১ টুকরো মাছ উঠিয়ে খায় তবে কি ডিসের সব তরকারি নষ্ট হবে?

ক্যাটাগরি

প্রশ্নোত্তর 42

প্রশ্ন

বিড়ালের উচ্ছিষ্ট কি পাক? যদি কোন তরকারির ডিস থেকে বিড়াল ১ টুকরো মাছ উঠিয়ে খায় তবে কি ডিসের সব তরকারি নষ্ট হবে?

উত্তর

হা বিড়ালের উচ্ছিষ্ঠ পাক,বিড়াল কোনকছিুতে মুখ দিলে বা খেলে তা নাপাক হয়ে যায় না বরং পাক থাকে। এব্যাপারে একটি হাদীসে এসেছে, আবু কাতাদাহ রাঃ বলেন: রাসূল সা. বলেছেন: إِنَّهَا لَيْسَتْ بِنَجَسٍ إِنَّمَا هِىَ مِنَ الطَّوَّافِينَ عَلَيْكُمْ أَوِ الطَّوَّافَاتِ র্অথঃ নিশ্চয় বিড়াল অপবিত্র নয়, সে তোমাদের নিকট বশেী বশেী বিচরনণকারী প্রাণীদের অন্তর্ভুক্ত। শায়েখ আলবানী হাদীসটিকে সহীহ বলছেন এবং তিরমিযী রহঃ হাসান সহী বলছেনে। তিরমিযী, আস সুনান, তাহকীক, আহমাদ শাকরে ও আলবানী-১/১৫৩ ;হাদীস নং-৯২, ইমাম তিরমিযী রহঃ বলেন: অধকিাংশ সাহাবী, তাবেয়ী এবং শাফী রহঃ ও আহমাদ রহঃ সহ পরবর্তি উলামায়ে কেরাম এই মত পোষণ করছেনে। প্রগুক্ত। একবার দাউদ ইবনে সালেহ এর আম্মাকে দিয়ে তার মনিব হারিসা সহ (গোশত ও গম একত্রে মিশিয়ে প্রস্তুতকৃত খাদ্য বিশেষ) আয়েশা (রা.) এর নিকট পাঠালেন। তিনি বলেন: আমি তাকে নামাযরত পেলাম। তিনি আমাকে তা রেখে দেওয়ার জন্য ইশারা করলেন। এরপর বিড়াল এসে তার থেকে খেলো । নামাজ শেষে আয়েশা (রা.) বিড়ালের মুখ দেয়া স্থান থেকে খেলেন এবং বললেন,, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, নিশ্চয় বিড়াল অপবিত্র নয়, সে তোমাদের নিকট বিচরনণকারী প্রাণীদের অন্তর্ভুক্ত। আর আমি রাসুল (সা.) কে বিড়ালের ঝুটা মিশ্রিত পানি দ্বারা অযু করতে দেখেছি। আবু দাউদ-১/২৯; হাদীস নং-৭৬। আল্লামাহ ইবনে আব্দুল বার, শাইখ আলবানী সহ অন্যান্য আলেমগন হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন। আল্লামাহ ইবনে আব্দুল বার বলেন: ইরাক ও হিযাযের প্রায় সব তাবেঈ উক্ত মত ব্যক্ত করেছেন। পরবর্তি জমহুর উলামায়ে কেরাম ও ইমামগণ বিড়ালের ঝুটাকে পবিত্র বলেছেন। যেমন মালেক রহঃ, লাইছ রহঃ, আওযায়ী রহঃ, সুফিয়ান সাওরী রহঃ, শাফেয়ী রহঃ, আহমাদ ইবনে হাম্বাল রহঃ ইত্যাদি। আলইসতিযকার-১/১৬৪। আবু হুরাইরা রাঃ অপর এক হাদীসে রাসূল সাঃ থেকে বর্ননা করেন, রাসূল সাঃ বলেন: يُغْسَلُ الإِنَاءُ إِذَا وَلَغَ فِيهِ الْكَلْبُ سَبْعَ مَرَّاتٍ أُولاَهُنَّ أَوْ أُخْرَاهُنَّ بِالتُّرَابِ وَإِذَا وَلَغَتْ فِيهِ الْهِرَّةُ غُسِلَ مَرَّةً অর্থঃ কুকুরে মুখ দিয়েছে এমন পাত্র সাতবার ধৌত করতে হবে,প্রথমবার বা (বর্ননাকারীর সন্দেহ) শেষবার মাটি দিয়ে। আর যেপাত্রে বিড়াল মুখ দিবে তা একবার ধৌত করতে হবে। ইমাম তিরমিযী রহঃ হাদীসটিকে হাসান সহীহ বলেছেন এবং শায়েখ আলবানী রহঃ সহীহ বলেছেন। তিরমিযী,আস-সুনান,তাহকীক,শায়েখ আলবানী রহঃ, ১/১৫১, হাদীস নং৯১। এহাদীসের আলোকে ইমাম আবু হানীফা রহঃ বিড়ালের ঝুটাকে মাকরুহ বলেছেন। তবে অজু করলে তা যথেষ্ঠ হবে বলেও মত দিয়েছেন। ইবনে আব্দুল বার রহঃ বলেন:আবু হানীফা রহঃ এর বিপরীতে তার ছাত্ররা বিড়ালের ঝুটাকে পবিত্র বলেছেন। আল-ইসতিজকার,১/১৬৫, কিতাব,আত-তাহারাত, বাব,আত-তুহুর লিলউযুই।