আস-সুন্নাহ ট্রাস্ট

প্রশ্নোত্তর

ক্যাটাগরি

প্রশ্নোত্তর 6957

অর্থনৈতিক

প্রকাশকাল: 25 মে 2024

প্রশ্ন

আসসালামু আলাইকুম৷ দয়া করে পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে উত্তর দিবেন৷

চাকুরিতে কাজের নিমিত্তে ফোন কল বাবদ, ধরুন ৫০০ টাকা দিয়েছে৷ কিন্তু ফোন কলে ৫০০ টাকার চেয়ে কম খরচ হয়েছে৷ আবার কাজের জন্য যাতায়াত ভাড়া ফিক্সড যা দিয়েছে, যাতায়াতে কম খরচ হয়েছে৷ অতিরিক্ত এই টাকাটা নিজের জন্য ভোগ করার অপশন আছে কীনা?( ইসলামি দৃষ্টিতে)৷ উল্লেখ্য, এই টাকাটা এককালীনই দিয়ে দিয়েছে, ফেরত দেওয়ার অপশন নাই বা কেও কখনও ফেরত দিয়েছে কীনা জানিনা বা দিতে চাইলেও ব্যাপারটা নিয়ে অফিসে হাসাহাসি হতে পারে৷ অফিসের কালচারই অমন৷ আবার ট্রেনিং বাবদ, অফিশিয়াল ট্যুর  বাবদ টাকা বরাদ্দ থাকে৷ কিন্তু ট্রেনিং না করা স্বত্ত্বেও, ট্যুর না দেওয়া স্বত্ত্বেও টাকা/টিএ/ডিএ  অফিস থেকে অটোমেটিকালি দিচ্ছে ৷ ইচ্ছা করে ট্যুর বা ট্রেনিং মিস করছিনা, অফিস ই তার অন্য প্রয়োজনে আমাকে অন্য জায়গায় খাটাচ্ছে ৷ অন্যদিকে ট্যুরের অফিস অর্ডারে আমার নাম লিখে টাকা পাঠিয়ে দিচ্ছে৷ পুরো ব্যাপারটাই অটোমেটিক৷  এইসব টাকা হালাল হবে কীনা?

উল্লেখ্য: আমি ধনী নই ৷ নইলে সন্দেহমুক্ত থাকার জন্য ওই টাকা দান করে দিতাম৷ আমার করনীয় কী৷ আর ওইসব টাকা হজ্জ উমরাহর নিয়তে জমানো যাবে কীনা৷ প্লিজ উত্তর দিবেন৷

উত্তর

ওয়া আলাইকুমুস সালাম। ফোন করার জন্য, যাতায়াত ভাড়ার জন্য যতটুকু টাকা খরচ হবে ততটুকুই নিতে পারবেন। বাকীটা ফেরৎ দিতে হবে। হাসাহাসি করলেও ফেরত দিতে হবে। টাকা রেখে দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। টাকা রেখে দেওয়ার কালচার থাকলে কাজ ঠিকমত হবে না, টাকা কীভাবে কম খরচ করে বাকী টাকা রেখে দেয়া যায় সবাই সে সুযোগ খুঁজবে। ট্যুর, ট্রেনিং যদি অফিসের কারণে মিস হয় আর অফিস ট্যুর, ট্রেনিংয়ের জন্য টাকা দেয় তাহলে নেয়া যেতে পারে। তবে না নেয়া উত্তম। নির্ভেজাল সন্দেহমুক্ত হালাল টাকা দিয়ে হজ্ব-ওমরা করবেন। এই সব সন্দেহযুক্ত টাকা দিয়ে হজ্ব ওমরা করবেন না।